• ** জাতীয় ** আমরা জীবাশ্ম জ্বালানির ব্যবহার হ্রাস করেছি : শেখ হাসিনা ** আবারও তিন দিনের ‘হিট অ্যালার্ট’ জারি ** চুয়াডাঙ্গায় হিট স্ট্রোকে দুই নারীর মৃত্যু ** ইউআইইউ ক্যাম্পাসে ‘কৃত্রিম বৃষ্টি’ নিয়ে তোলপাড় সারাদেশ ** সিলেটে মসজিদে যাওয়ার পথে বজ্রপাতে ইমামের মৃত্যু ** নরসিংদীতে হিট স্ট্রোকে যুবকের মৃত্যু ** সব ধরনের সংবাদ জানতে ভিজিট করুন : https://www.newsflash71.com ** সব ধরনের ভিডিও দেখতে ভিজিট করুন : youtube.com/newsflash71 ** লাইক দিন নিউজফ্ল্যাশের ফেসবুক পেইজে : fb/newsflash71bd **


মানবিকতার জন্য নিজেকে উৎসর্গ করেছেন শায়খুল হাদিস মাওলানা আ. রউফ, সমাজের বাতিঘর

রায়হান রাজীব | প্রকাশিত: ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ০১:১৭

ছবি: সংগৃহীত

কোরআনের একাধিক আয়াতে আল্লাহর অলিদের পরিচয় দেওয়া হয়েছে। কোরআনের ভাষ্য, প্রকৃত ইমানদাররা আল্লাহর অলি। যাঁদের অন্তরে তাকওয়া ও খোদাভীতি আছে তাঁরাই আল্লাহর অলি। হাদিস শরীফেও বলা আছে, হুমুল্লাজিনা ইযা রুয়ু ওয়া উয-কুরুল্লাহা- যাকে দেখলে আল্লাহ তায়ালার কথা স্মরণ হয়, মনে ভয় আসে এবং ইবাদত বন্দেগীতে মন বসে, তিনিই প্রকৃত কামেল মুর্শিদ, আউলিয়া বা আল্লাহতায়ালার খাসবান্দা।

যার উৎকৃষ্ট উদাহরণ ঢাকার হুজুরখ্যাত মাওলানা আ. রউফ। তিনি ছিলেন গওহরডাঙ্গা মাদ্রাসার শায়খুল হাদিস ও নায়েবে মুহতামিম। যার ওস্তাদ ছিলেন সদর সাহেব হুজুরখ্যাত মোজাহেদে আজম আল্লামা শামছুল হক ফরিদপুরী (রহ.)। ওস্তাদের প্রতি ছিলো তার অকৃত্রিম ভালোবাসা।  

শামছুল হক ফরিদপুরী (রহ.) যেভাবে উম্মতের প্রতি দায়বোধ থেকে নিজেকে মানবিকতার জন্য উৎসর্গ করেছিলেন, শায়খুল হাদিস মাওলানা আ. রউফ ছিলেন সেই মিশনের এক উজ্জ্বল নক্ষত্র।

সময়টা ৩ মার্চ ১৯৩৬। মাওলানা রউফ মুন্সীগঞ্জের (বিক্রমপুর) সিরাজদিখান উপজেলার বাহেরকুচি গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবার নাম আ. আজিজ, মায়ের নাম জোবায়দা খাতুন। স্কুলে পড়ালেখা করেন অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত।

পঞ্চম শ্রেণিতে পড়ার সময় ঘটলো একটি ঘটনা। মোস্তফাগঞ্জ এলাকায় মাহফিলের সফরে আসেন আল্লামা শামছুল হক ফরিদপুরী (রহ.) মাওলানা মোহাম্মদুল্লাহ হাফেজ্জি হুজুর (রহ.) ও মাওলানা আবদুল ওয়াহাব পীরজী হুজুর (রহ.)।

তখন সদর সাহেব হুজুর (রহ.)-এর সঙ্গে মাওলানা আ. রউফের পরিচয় হয়। ঢাকার হুজুরের বাবা ছিলেন এলাকার চেয়ারম্যান। আগে থেকেই সদর সাহেব হুজুরের সঙ্গে তার পরিচয় ছিল। সেই সুবাদে তিনি এলাকায় একটি বড় মাহফিলের ব্যবস্থা করেন। ওই মাহফিলে এই তিন বুজুর্গ আলেমকে দাওয়াত দেন ওয়াজ-নসিহতের জন্য।

ওই মাহফিলকে কেন্দ্র করে একটি বিশেষ ঘটনা ইতিহাসে স্থান নেয়। ঘটনাটি হলো মাহফিল কর্তৃপক্ষ তিনজনকে তিনশ টাকা হাদিয়া দেন। কিন্তু তারা কোনোভাবেই সেই হাদিয়া নিতে চান না। তখন বলা হয়, এটা রাহ খরচ (ভাড়া)। জবাবে তারা বলেন, রাহ খরচ তো বারোআনা, তাহলে এত টাকা দিয়ে কী করবো?

তারা জানতে চান, এখানে কি কোনো মাদ্রাসা আছে? বলা হলো, নেই। তখন তারা হাদিয়ার টাকা একটি মাদ্রাসা করার জন্য দান করলেন। এরপর স্থানীয় এক আলেম (মাওলানা আ. আজিজ) উদ্যোগী হয়ে ১৯৪৬ সালে একটি মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করেন। সেটাই জামিয়াতুল ইসলামিয়া মোস্তফাগঞ্জ মাদ্রাসা। অষ্টম শ্রেণি শেষ করে ঢাকার হুজুর এই মাদ্রাসায় ভর্তি হন।

তিনি অত্যন্ত মেধাবী ছিলেন। অষ্টম শ্রেণিতে পড়ার সময়ই ইংরেজিতে চিঠিপত্র লিখতে পারতেন। তিনি স্কুল ছেড়ে মাদ্রাসায় ভর্তি হবেন, এটা শুনে স্কুলের শিক্ষকরা নিষেধ করেন। তা সত্ত্বেও তিনি মাদ্রাসায় ভর্তি হন।

মাত্র দুই বছরে পবিত্র কোরআন হেফজ শেষ করেন। তিনিই মোস্তফাগঞ্জ মাদ্রাসার প্রথম হাফেজ। পরে সেখানে কাফিয়া জামাত পর্যন্ত পড়ালেখা করে জামেয়া কোরআনিয়া আরাবিয়া লালবাগ মাদ্রাসায় ভর্তি হন। সেখানে পড়ালেখার পাশাপাশি হজরত সদর সাহেব হুজুর (রহ.)-এর সান্নিধ্যে যাওয়া শুরু করেন। শরহেজামি থেকে দাওরা হাদিস পর্যন্ত লালবাগ মাদ্রাসায় পড়ালেখা করেন।

পাকিস্তানের বিখ্যাত আলেম হজরত ইউসুফ বিননূরী (রহ.) একবার এ মাদ্রাসায় আগমন করেন। তিনি হজরত সদর সাহেব হুজুর (রহ.)-এর সঙ্গে বসেছিলেন, তখন ঢাকার হুজুর তাদের সেবাযত্নে নিয়োজিত ছিলেন। ওই সময় হুজুরকে দেখিয়ে সদর সাহেব (রহ.) বিননূরী (রহ.)-কে বললেন, ছেলেটি খুব ভদ্র ও মেধাবী। তাকে আপনার কাছে হাদিস পড়তে পাঠাব। বিননূরী (রহ.) সম্মতি জানালেন।

দাওরায়ে হাদিস শেষ হলে হুজুরের জীবনে ঘটে গুরুত্বপূর্ণ এক ঘটনা। হুজুরের ভাষ্য, আমি এক দিনে তিনটি সুসংবাদ পেলাম। এক. পরীক্ষায় প্রথম হই। দুই. ওইদিনই আমার ও আমার বাবার হজের টিকিট সম্পূর্ণ হয়। তিন. পাঠ্য কিতাব সম্পর্কে পুরো দক্ষতার বিষয়ে সুসংবাদ দেওয়া হয় উস্তাদদের পক্ষ থেকে।

লালবাগ থেকে উস্তাদ হয়ে মোস্তফাগঞ্জ মাদ্রাসায় আসেন। কিছুদিন পর তিনি বিয়ে করেন। যাকে বিয়ে করেন তিনি ছিলেন হাফেজে কোরআন। বিয়ে প্রসঙ্গে হুজুর বলেন, বিয়ের জন্য বাড়ি থেকে মেয়েটিকে দেখা হয়। তিনি ছিলেন খুবই মেধাবী, আমারও খুব করে মনে চাচ্ছিল তাকে বিয়ে করার বিষয়ে। কিন্তু আব্বা রাজি ছিলেন না। তখন আমি একটি মানত করি, যদি এই মেয়ের সঙ্গে আমার বিয়ে হয়, ‌তাহলে কোনো দিন তাহাজ্জুদ ছাড়ব না। অতঃপর তার সঙ্গেই আমার বিয়ে হয়।

কিছুদিন পর সদর সাহেব (রহ.) বিননূরী (রহ.)-এর কাছে চিঠি লিখে হাদিস বিষয়ে উচ্চশিক্ষা অর্জনের জন্য হুজুরকে পাকিস্তান পাঠিয়ে দেন। তখন বাংলাদেশের কোথাও উলুমুল হাদিস (উচ্চতর হাদিসশাস্ত্র) বিষয়ে পড়াশোনার ব্যবস্থা ছিল না।

আর পাকিস্তানে উলুমুল হাদিসে পড়াশোনার জন্য ভর্তি পরীক্ষা দিতে হলে পাকিস্তান কওমি মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের অধীনে পরীক্ষার ফলাফলে মেধা তালিকায় এক থেকে পাঁচের মধ্যে থাকতে হয়। এরপর ভর্তি পরীক্ষায় পাস করলে ভর্তি করা হয়।

কিন্তু সদর সাহেব হুজুরের চিঠি হজরত বিননূরী (রহ.)-কে দিলে কোনো ধরনের ভর্তি পরীক্ষা ছাড়াই ঢাকার হুজুরকে ভর্তি করে নেওয়া হয়। ঢাকার হুজুরের মতে, এটা ছিল হজরত সদর সাহেব হুজুর (রহ.)-এর কারামত। উলুমুল হাদিস পড়া শেষ হলে হজরত বিননূরী (রহ.) সদর সাহেব হুজুর (রহ.)-এর কাছে চিঠি লিখে ঢাকার হুজুরকে পাঠিয়ে দেন। চিঠির ভাষ্য ছিল অনেকটা এমন, এই ছেলের হাদিস পড়ানোর মতো পরিপূর্ণ যোগ্যতা অর্জন হয়েছে, তাকে আপনি হাদিসের কাজে লাগাতে পারেন।

বাংলাদেশে আসার পর সদর সাহেব হুজুর (রহ.) তাকে গোপালগঞ্জের গওহরডাঙ্গা মাদ্রাসার উস্তাদ হিসেবে নিয়োগ দেন। কিতাব বণ্টনের সময় সদর সাহেব হুজুর (রহ.)-এর ইচ্ছা ছিল তাকে মুসলিম শরিফ দেওয়ার।

কিন্তু অনেক মুরব্বি ওস্তাদ থাকায় একজন নবীন আলেমকে মুসলিম শরিফ দেওয়াটা অনেকে পছন্দ করল না। ফলে হুজুরকে দেওয়া হয় সিহাহ সিত্তার অন্যতম কিতাব নাসাঈ শরিফ। হুজুর নাসাঈ শরিফ বেশ গুরুত্ব দিয়ে পড়াতেন। অল্প কিছুদিনের মধ্যে ছাত্ররা আবেদন জানান হুজুরের কাছে মুসলিম শরিফ পড়ার। পরে তাকে সহিহ মুসলিম পড়ানোর দায়িত্ব দেওয়া হয়।

এর কিছুদিন পর হুজুর সহিহ বোখারি শরিফ পড়ানোর দায়িত্ব পান। সেই থেকে এখনো সহিহ বোখারির দরস দিয়ে যাচ্ছেন। মাওলানা আ. রউফ শায়খুল হাদিস হিসেবে দীর্ঘদিন ধরে গওহরডাঙ্গা মাদ্রাসাসহ অর্ধশত মাদ্রাসায় বোখারির দরস দেন।

ঢাকার অন্তত বারো-তেরোটি মাদ্রাসায় হুজুর বোখারির দরস দিয়েছেন। ঢালকানগর মাদ্রাসা, মিরপুর জামেউল উলুম মাদ্রাসা, ফয়জুল উলুম মাদ্রাসা, সাইনবোর্ড মাদ্রাসা ও মোস্তফাগঞ্জ মাদ্রাসা অন্যতম। পদ্মার এপারে প্রায় সব দাওরায়ে হাদিস মাদ্রাসাতেই হুজুর পড়াতেন। বিশেষ করে শিবচর জামিয়াতুস সুন্নাহ, রায়েরমহল মাদ্রাসা, রাজৈর মাদ্রাসা, গোপালগঞ্জ কোর্ট মসজিদ মাদ্রাসা, গোপালগঞ্জ ভবানীপুর মাদ্রাসা ও মেরী গোপিনাথপুর মাদ্রাসাসহ এ অঞ্চলের প্রায় সব বড় মাদ্রাসায় তিনি বোখারি শরিফ পড়িয়েছেন।

বার্ধক্যজনিত কারণে এখন কথা ভালো করে বলতে না পারলেও, নিয়মিত বোখারির দরসে হাজির হন। কিছু সময় পড়ান। লালবাগে দাওরায়ে হাদিস শেষ করেই তিনি বাবার সঙ্গে প্রথমবার হজে গমন করেন। এরপর থেকে প্রায় প্রতি বছরই তিনি পবিত্র হজ পালন করেছেন।

অনুমান করা হয়, তিনি অন্তত পঞ্চাশবারের বেশি পবিত্র হজ পালন করেছেন। হুজুর খুব সাদাসিধে অবস্থায় হজের সফরে যান। সাধারণ পোশাক, পায়ে স্যান্ডেল ও হাতে পলিথিনের ব্যাগ নিয়ে বের হয়ে যান হজের সফরে। কখনো বাসায় না বলেই চলে যেতেন। মক্কায় গিয়ে সর্বদা ইবাদত-বন্দেগিতে মশগুল থাকতেন, কখনো খাওয়া-দাওয়া বা ঘুমানোর ফিকির করতেন না।

কবি বলেছেন, পিতা গড়েন দেহ, শিক্ষক গড়েন মন, পিতা বড় না শিক্ষক বড়, বলিবে কোনজন? পিতা-মাতা সন্তান জন্ম দেন, একজন শিক্ষক সে সন্তানকে যোগ্যতর মানুষ হিসেবে গড়ে তোলেন। আর এভাবে একজন শিক্ষক তার শিক্ষার্থীর আত্মিক মাতা-পিতা বা অভিভাবকের স্থান নেন। মাওলানা আ. রউফের জীবনে এ কথা মিলে যায় অক্ষরে অক্ষরে।

একজন শিক্ষক তার কথাবার্তা, চাল-চলন, যুক্তিপূর্ণ বিচার-বিশ্লেষণ ও নৈতিক গুণাবলির দ্বারা এমন একটি আদর্শ স্থাপন করবেন, যা শিক্ষার্থীদের সামনে অনুকরণীয় হয়ে থাকবে। শিক্ষার্থীরা বই পড়ে যেমন জ্ঞানার্জন করে, তেমনি একজন আদর্শ শিক্ষকের দিকে তাকিয়ে তারা জীবনের জন্য শিক্ষালাভ করতে পারে।

ঢাকার হুজুর মাওলানা আ. রউফ তেমনি একজন শিক্ষক। তার জীবন থেকে ছাত্রদের শেখার রয়েছে অনেক বিষয়। তিনি একজন আলোকিত মানুষ, সমাজের বাতিঘর।

রাজধানী ঢাকার বড় বড় মাদ্রাসায় সহিহ বোখারি পড়ানোর প্রস্তাব পাওয়া সত্ত্বেও শুধু সদর সাহেব হুজুর (রহ.)-এর মহব্বত ও ভালোবাসার কারণে পুরো জীবন গওহরডাঙ্গা মাদ্রাসায় থাকার সিদ্ধান্ত নেন। চার ছেলে ও পাঁচ মেয়ের জনক তিনি। ছেলেরা সবাই দ্বীনের বিভিন্ন খেদমতে নিয়োজিত রয়েছেন। মেয়ের জামাইরাও আলেম। আল্লাহতায়ালা হুজুরকে সুস্থ জীবন দান করুন।




পাঠকের মন্তব্য

মন্তব্য পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Top