• ** জাতীয় ** আমরা জীবাশ্ম জ্বালানির ব্যবহার হ্রাস করেছি : শেখ হাসিনা ** আবারও তিন দিনের ‘হিট অ্যালার্ট’ জারি ** চুয়াডাঙ্গায় হিট স্ট্রোকে দুই নারীর মৃত্যু ** ইউআইইউ ক্যাম্পাসে ‘কৃত্রিম বৃষ্টি’ নিয়ে তোলপাড় সারাদেশ ** সিলেটে মসজিদে যাওয়ার পথে বজ্রপাতে ইমামের মৃত্যু ** নরসিংদীতে হিট স্ট্রোকে যুবকের মৃত্যু ** সব ধরনের সংবাদ জানতে ভিজিট করুন : https://www.newsflash71.com ** সব ধরনের ভিডিও দেখতে ভিজিট করুন : youtube.com/newsflash71 ** লাইক দিন নিউজফ্ল্যাশের ফেসবুক পেইজে : fb/newsflash71bd **


প্রথম মাসে কত টাকা চাঁদা উঠল সার্বজনীন পেনশন স্কিমে

পেনশন স্কিমে জমা দেওয়া অর্থ সুরক্ষিত থাকবে তো? জাতীয় পেনশন কর্তৃপক্ষ কী বলছে...

রায়হান রাজীব | প্রকাশিত: ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ২৩:৫৪

ছবি: সংগৃহীত

দেশে প্রথমবারের মতো সর্বজনীন পেনশন স্কিম চালুর এক মাস পূর্ণ হয়েছে। গেলো ১৭ আগস্ট এর আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হয়। তবে এই সর্বজনীন পেনশন স্কিম ঘিরে মানুষের মনে ঘুরপাক খাচ্ছে নানা প্রশ্ন। অনেকেই জানতে চাইছেন পেনশন স্কিম করে কী সুবিধা পাওয়া যাবে, কিভাবে এতে যুক্ত হওয়া যাবে, পেনশন স্কিমে টাকা দিয়ে শেষ পর্যন্ত সেটি পাওয়া যাবে তো?

চলুন জেনে আসি, কী কারণে পেনশন স্কিম:

জাতীয় পেনশন কর্তৃপক্ষ বলছে, দেশের অন্তত ১০ কোটি মানুষ পেনশনব্যবস্থার আওতায় আসবেন এমন প্রত্যাশা সরকারের। বিশাল জনগোষ্ঠীকে সামাজিক নিরাপত্তা কাঠামোর আওতায় আনা এবং নিম্ন আয় ও অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতে নিয়োজিত ৮৫ শতাংশ মানুষকে সুরক্ষা দিতেই পেনশন স্কিম চালু করা হয়।

কারা-কিভাবে যুক্ত হতে পারবেন:

সবার জন্য চালু করা পেনশন স্কিমে অন্তর্ভুক্ত হতে ইউপেনশন ওয়েবসাইটে (www. upension. gov. bd) গিয়ে নিবন্ধন করতে হয়। এ ক্ষেত্রে জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) বা পাসপোর্ট নম্বর, একটি সচল মুঠোফোন নম্বর, ব্যাংক হিসাব নম্বর, নমিনির এনআইডি তথ্য লাগে। 

জাতীয় পরিচয়পত্র অনুযায়ী ১৮ থেকে ৫০ বছর বয়সী সকল শ্রেণী পেশার বাংলাদেশি নাগরিক এই স্কিমে অংশ নিতে পারবে। যাদের বয়স ৫০ পেরিয়ে গেছে তারাও সর্বজনীন পেনশন স্কিমে অংশ নিতে পারবেন। কিন্তু সেক্ষেত্রে তিনি পেনশন পাবেন টানা ১০ বছর চাঁদা দিয়ে যাওয়ার পর।

স্কিম অনুযায়ী ব্যক্তির বয়স ৬০ বছর হলেই তিনি সরকার থেকে পেনশন পেতে শুরু করবেন, তাকে আর চাঁদা দিতে হবে না। কিন্তু কেউ যদি ৫৫ বছর বয়সে এসে স্কিমে অংশ নেন তাহলে ৬৫ বছর বয়স থেকে তিনি পেনশন পেতে শুরু করবেন।

কতদিন পরপর টাকা জমা রাখবেন:

মাসিক চাঁদা ছাড়াও কেউ চাইলে তিন মাস পরপর বা বছরে একবার পুরো চাঁদা দিয়ে দিতে পারবেন। নির্ধারিত তারিখের মধ্যে চাঁদা দিতে ব্যর্থ হলে তার পরের এক মাস পর্যন্ত জরিমানা ছাড়া চাঁদা পরিশোধ করা যাবে। এরপর থেকে প্রতি দিনের জন্য এক শতাংশ বিলম্ব ফি যুক্ত হবে। কেউ টানা তিন কিস্তি পরিশোধ না করলে তার অ্যাকাউন্টটি স্থগিত হয়ে যাবে। তবে কেউ যদি নিজেকে অসচ্ছল ঘোষণা করে তাহলে ১২ মাস পর্যন্ত চাঁদা না দিলেও অ্যাকাউন্টটি স্থগিত হবে না।

অনলাইন এবং যে কোন মোবাইল ব্যাংকিং সেবার মাধ্যমে চাঁদা পরিশোধ করা যাবে। আপাতত শুধুমাত্র সোনালী ব্যাংকে সর্বজনীন পেনশন স্কিমের হিসাব খোলা হয়েছে। কেউ চাইলে সরাসরি সোনালী ব্যাংকে গিয়েও নিবন্ধন করতে পারবেন ও চাঁদা দিতে পারবেন।

পেনশন স্কিমে সুবিধা পাবেন যারা:

সর্বজনীন পেনশন স্কিম বিধিমালা অনুযায়ী, এ কর্মসূচিতে যুক্ত হলে ৬০ বছর বয়সের পর থেকে আজীবন পেনশন সুবিধা পাবেন গ্রাহক। চাঁদা পরিশোধের পর তিনি মারা গেলে তার নমিনি বা উত্তরাধিকারী পেনশন পাবেন ১৫ বছর। কেউ চাইলে এক বা একাধিক ব্যক্তিকে নমিনি করতে পারবেন। তবে সর্বজনীন পেনশন স্কিমের আওতায় থাকবেন না সরকারি চাকুরীজীবীরা।

সর্বজনীন পেনশন স্কিমে ১৮ থেকে ৫০ বছর বয়সী একজন সুবিধাভোগী ৬০ বছর বয়স পর্যন্ত এবং ৫০ বছরের ঊর্ধ্ব বয়স্ক একজন সুবিধাভোগী ন্যূনতম ১০ বছর চাঁদা দিয়ে আজীবন পেনশন সুবিধা পাবেন। পেনশনে থেকে ৭৫ বছর পূর্ণ হওয়ার আগে মারা গেলে পেনশনারের নমিনি পেনশন স্কিম গ্রহণকারীর ৭৫ বছর পূর্ণ হওয়ার অবশিষ্ট সময় পর্যন্ত পেনশন পাবেন। অপরদিকে চাঁদাদাতা কমপক্ষে ১০ বৎসর চাঁদা দেওয়ার আগেই মারা গেলে জমা করা অর্থ মুনাফাসহ ফেরত পাবেন নমিনি।

পেনশন স্কিম নিয়ে লিখেছেন রাজীব রায়হান

প্রয়োজন পড়লে টাকা তুলতে পারবেন কী:

কারো যদি পেনশনে জমাকৃত অর্থ কোন এক পর্যায়ে উত্তোলনের দরকার হয় তাহলে সেই সুযোগও থাকছে। আর চাঁদাদাতার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে কেবল তার জমা করা অর্থের সর্বোচ্চ ৫০ শতাংশ ঋণ হিসাবে উত্তোলন করা যাবে। মাসিক পেনশন বাবদ পাওয়া অর্থ আয়কর মুক্ত থাকবে ও পেনশনের জন্য নির্ধারিত চাঁদা বিনিয়োগ হিসাবে গণ্য করে কর রেয়াত পাবেন।

পেনশন বিধিমালা বলছে, সর্বজনীন পেনশন প্রথায় যার যত টাকা জমা, মেয়াদ শেষে তার তত বেশি পেনশন। অন্যদিকে, স্বল্প আয়ের মানুষদেরও বিমুখ করবে না এ উদ্যোগ। যারা মাসিক ৫০০ টাকা জমাবেন, তাদের জন্য শুরু থেকেই থাকবে সরকারের আরও ৫০০ টাকার ভর্তুকি। সবমিলিয়ে, সবার জন্যই থাকছে নির্দিষ্ট মেয়াদ শেষে বাড়তি কয়েকগুণ মুনাফা। পেনশনের জন্য প্রতি মাসে জমা দেয়া চাঁদা বিনিয়োগ হিসেবে দেখা হবে এবং সেই অর্থ কর রেয়াতের জন্য বিবেচিত হবে। মাসিক পেনশন বাবদ প্রাপ্ত অর্থ হবে আয়কর মুক্ত।

কে-কোন ধরণের স্কিমে যুক্ত হবেন:

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সমাজের বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের কথা বিবেচনায় নিয়ে সর্বজনীন পেনশন ব্যবস্থা চালু করা হয়েছে। শুরুতে চার শ্রেণির জনগোষ্ঠীর জন্য চার ধরনের পেনশন কর্মসূচি চালু করা হয়। এগুলোর নাম হচ্ছে প্রগতি, সুরক্ষা, সমতা ও প্রবাসী। এর মধ্যে বেসরকারি খাতের চাকরিজীবীদের জন্য প্রগতি, স্বকর্মে নিয়োজিত ব্যক্তিদের জন্য সুরক্ষা, প্রবাসী বাংলাদেশিদের জন্য প্রবাসী এবং দেশের নিম্ন আয়ের জনগোষ্ঠীর জন্য সমতা শীর্ষক কর্মসূচি চালু করা হয়।

তারা বলছেন, একেকটি স্কিম একেক শ্রেণীকে লক্ষ্য করে তৈরি করা হয়েছে। তাই চাঁদার পরিমাণও একেক রকম। প্রগতি স্কিম বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের চাকরিজীবীদের জন্য নির্ধারিত। চাঁদা দেওয়ার ক্ষেত্রেই তারাই সবচেয়ে বেশি এগিয়ে রয়েছেন।

প্রগতি স্কিম:

পেনশন স্কিম কর্তৃপক্ষ বলছে, সবচেয়ে বেশি গ্রাহক চাঁদা জমা দিয়েছেন প্রগতি স্কিমে। তাদের সংখ্যা ছয় হাজার ১৯৪ জন, যা মোট গ্রাহকের প্রায় অর্ধেক (৪৭ দশমিক ৭৪ শতাংশ)। তাদের জমা দেওয়ার চাঁদার পরিমাণ চার কোটি পাঁচ লাখ ৫০ হাজার টাকা।

বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মচারীদের জন্য তিন ভাগে চাঁদার হার ভাগ করা হয়েছে। কেউ চাইলে মাসে দুই হাজার, তিন হাজার বা পাঁচ হাজার টাকা করে দিয়ে এই স্কিমে অংশ নিতে পারবেন। আবার প্রতিষ্ঠান বা প্রতিষ্ঠানের মালিকও প্রগতি স্কিমে অংশ গ্রহণ করতে পারবে। সেক্ষেত্রে মোট চাঁদার অর্ধেক কর্মচারী এবং বাকি অর্ধেক প্রতিষ্ঠান বহন করবে।

সুরক্ষা স্কিম:

দ্বিতীয় সর্বোচ্চসংখ্যক গ্রাহক পাওয়া গেছে সুরক্ষা স্কিমে। সুরক্ষা স্কিমটা স্বনির্ভর ব্যক্তির জন্য। কেউ কোথাও চাকরি করছেন না কিন্তু নিজে উপার্জন করতে পারেন, তারা সুরক্ষা স্কিমে অংশ নিতে পারবেন। এ স্কিমের আওতায় চাঁদা দিয়ে গ্রাহক হয়েছেন পাঁচ হাজার ২০ জন, যা মোট গ্রাহকের এক-তৃতীয়াংশের বেশি (৩৮ দশমিক ৬৯ শতাংশ)। এসব গ্রাহকের জমা দেওয়া চাঁদার পরিমাণ দুই কোটি ৫৬ লাখ ৭৬ হাজার টাকা। এর আওতায় পড়বেন অনানুষ্ঠানিক খাতে কর্মরত বা আত্মকর্মসংস্থানে নিয়োজিত ব্যক্তি( ফ্রিল্যান্সার, কৃষক, শ্রমিক)। এই স্কিমে চাঁদার হার চার রকম- মাসে এক হাজার, দুই হাজার, তিন হাজার ও পাঁচ হাজার টাকা করে।

সমতা স্কিম:

অন্যদিকে দারিদ্র্যসীমার নিচে বসবাসকারী জনগোষ্ঠীর জন্য রয়েছে সমতা স্কিম। এই স্কিমের আওতায় গ্রাহক হয়েছেন এক হাজার ৩৬০ জন। তাদের সংখ্যা পেনশন স্কিমের মোট গ্রাহকের ১০ দশমিক ৪৮ শতাংশ। তারা চাঁদা জমা দিয়েছেন ২২ লাখ ৭০ হাজার ৫০০ টাকা। এ স্কিমে চাঁদাদাতা যে পরিমাণ অর্থ জমা দেবেন, সরকারের পক্ষ থেকেও সমপরিমাণ অর্থ জমা দেওয়া হবে চাঁদা হিসেবে। সমতা স্কিমের মাসিক চাঁদার হার ১ হাজার টাকা। এর মধ্যে স্কিম গ্রহণকারী চাঁদা দেবেন ৫০০ টাকা এবং বাকি ৫০০ টাকা দেবে সরকার। যাদের বর্তমান আয়সীমা বাৎসরিক সর্বোচ্চ ৬০ হাজার টাকা তাদের জন্য সমতা স্কিম।

প্রবাসী স্কিম:

আর সবচেয়ে কম গ্রাহক পাওয়া গেছে প্রবাসী স্কিমে। গ্রাহক হয়েছেন মাত্র ৩৯৮ জন, যা মোট গ্রাহকের মাত্র ৩ দশমিক ০৬ শতাংশ। তাদের জমা দেওয়া টাকার পরিমাণ ৮২ লাখ ২৫ হাজার টাকা। কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, সর্বজনীন পেনশন স্কিমে নিবন্ধন করে গেলো রোববার সকাল পর্যন্ত চাঁদা পরিশোধ করেছেন ১২ হাজার ৮৮৯ জন।

সংশয় নিয়ে কী বলছে পেনশন কর্তৃপক্ষ:

এ স্কিমে জমা দেয়া অর্থ সুরক্ষিত থাকবে কীনা, মেয়াদ শেষে টাকা তুলতে গিয়ে ভোগান্তিতে পড়তে হবে কীনা - এরকম নানা প্রশ্নও জনমনে। তবে পেনশন কর্তৃপক্ষ বলছে, এ নিয়ে শঙ্কা থাকার কোন কারণ নেই, কারণ সরকার নিজে এর গ্যারান্টি দিচ্ছে।

জাতীয় পেনশন কর্তৃপক্ষের সদস্য গোলাম মোস্তফা জানান, এটা নিয়ে শঙ্কা থাকার কোন কারণ নেই। কারণ সরকার নিজে এটার গ্যারান্টি দিচ্ছে। যার মানে রাষ্ট্রীয় কমিটমেন্ট দিয়েছে। আমরা যে ইউনিক নাম্বার দেব প্রত্যেক পেনশনারকে, তারা কিন্তু ওই নাম্বার দিয়ে সবসময় চেক করতে পারবেন তার অ্যাকাউন্টে কত টাকা আছে। তারপরও মানুষের মনে যেসব প্রশ্ন বা সংশয় আছে তা দূর করতে প্রতিনিয়ত কাজ করা হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

একইসাথে মানুষের মনে সংশয় দূর করতেও নানা পরিকল্পনা হাতে নিচ্ছে সংস্থাটি। পেনশন সম্পর্কিত যে কোন তথ্যের জন্য সপ্তাহের সাত দিন ২৪ ঘন্টার জন্য একটি কল সেন্টার চালু রাখছেন তারা। যেকোন মোবাইল নম্বর থেকে ৩৩৩ নম্বরে ফোন করে যেকোন বাংলাদেশি নাগরিক এই স্কিমের খুঁটিনাটি জেনে নিতে পারবেন।

এর আগে, ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেট অধিবেশনে সর্বজনীন পেনশন পদ্ধতি প্রবর্তনের সুনির্দিষ্ট ঘোষণা দেয়া হয়। এরই ধারাবাহিকতায় সর্বজনীন পেনশন স্কিম চালুর লক্ষ্যে জাতীয় সংসদ কর্তৃক সর্বজনীন পেনশন ব্যবস্থাপনা আইন, ২০২৩ পাস করা হয়। বহুল প্রতীক্ষিত সর্বজনীন পেনশন কর্মসূচি (স্কিম) ১৭ আগস্ট সকালে উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তারপরই সবার জন্য সার্বজনীন পেনশন কর্মসূচি উন্মুক্ত করা হয়।




পাঠকের মন্তব্য

মন্তব্য পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Top